Thursday, March 29, 2012

বাংলাদেশে ২ বছরে সাতটি চিতাবাঘ হত্যা



Photo: The daily Prothom-alo, 29 March '12.

গত দুই বছরে অন্তত সাতটি চিতাবাঘ মেরেছে বাংলাদেশের মানুষ। সবচেয়ে ভয়ংকর খবর প্রকাশ করে আজকের বরিশাল নামের একটি সাইট যারা ২ এপ্রিল, ২০১৪-তে লেখে নলছিটি উপজেলার এক চিংড়ি ঘেরে প্রতি রাতেই চিতাবাঘ হত্যা করা হচ্ছে এবং এযাবত সেখানে দুটি বাঘ মারা পড়েছে। এছাড়া একটি চিতাবাঘকে গত ২৮ মার্চ, ২০১২ তারিখে বাংলাদেশের পঞ্চগড়ের মানুষ মেরে ফেলে। একটি বাঘ খাদ্যের খোঁজে লোকালয়ে এলে লোকজন চিকার শুরু করে এবং ভীত হয়ে বাঘটিকে আক্রমণ করে। ঘটনাটি ঘটে বাংলাদেশের পঞ্চগড় জেলার কাজলদিঘি-কালিয়াগঞ্জ ইউনিয়নের ডলুয়াপাড়া গ্রামে। মনে করা হচ্ছে বাঘটি ভারতের জংগল থেকে এসেছিলো। এছাড়াও আরো অনেক জায়গায় মাঝেমধ্যেই চিতাবাঘকে লোকজন হত্যা করে যার খবর মাঝেমাঝেই পত্রপত্রিকায় প্রকাশ পায়। যেমন ২০১১ সালে ৪টি চিতাবাঘ হত্যা করে বাংলাদেশের লোকেরা। ১২ জুলাই, ২০১১ তারিখে সিলেটে দুটি চিতাবাঘকে মারে সেখানকার লোকজন। একই বছরের ৮ অক্টোবর লালমনিরহাটে একটি এবং ২০১১ সালের নভেম্বরে মাদারিপুরের কালকিনিতে অপর চিতাবাঘটিকে লোকেরা হত্যা করে। অন্য এক খবরে জানা যায় ৩০ ডিসেম্বর, ২০০৯ তারিখেও বাংলাদেশের নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার চাঁদখানা বাহাগিলী বাশুলিয়াপাড়া গ্রামে একটি চিতাবাঘ মারা পড়েছিলো। এটা খুবই দুঃখজনক যে বাংলাদেশের বন বিভাগ এই মহাবিপন্ন প্রাণীটিকে রক্ষার জন্য যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করছে না। এছাড়াও ১৮ মার্চ, ২০১০-এ বরগুনা সদর উপজেলার ঢলুয়া গ্রামে একটি চিতাবাঘকে টেটাবিদ্ধ করে হত্যা করে গ্রামবাসী।  
ছবির ইতিহাস: ব্যবহৃত ছবিটি প্রথম আলোতে ২৯ মার্চ, ২০১২ তারিখে ছাপা হয়। যদিও খবরটি ইন্টারনেট সংস্করণে প্রকাশিত হয়নিছবিটি নেয়া হয়েছে eprothom-alo থেকে। এরকম একটি গুরুত্বপূর্ণ খবর অন্য কোনো পত্রিকাগুলোতে গুরুত্বসহকারে প্রকাশিত হয়নি।
আরো পড়ুন:

. বাংলাদেশের পাখির তালিকা 

. বাংলাদেশের স্তন্যপায়ী প্রাণীর তালিকা

৩. বাংলাদেশের ঔষধি উদ্ভিদের একটি বিস্তারিত পাঠ

৪. বাংলাদেশের ফলবৈচিত্র্যের একটি বিস্তারিত পাঠ

No comments:

Post a Comment

জনপ্রিয় দশটি লেখা, গত সাত দিনের

Recommended