Monday, April 23, 2012

কেয়া বা কেতকী বাংলাদেশের গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ



কেয়ার কাঁচা ফল।
বৈজ্ঞানিক নাম: Pandanus fascicularis Lam.
সমনাম: Pandanus tectorius Soland, Pandanus odoratissimus L. f.
বাংলা নাম: কেয়া, কেওড়া কিংবা কেতকী
ইংরেজি নাম: Crew pine, Caldera Bush.
আদিবাসি নাম: রেজি (চাকমা)।

জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্য: Plantae - Plants
উপরাজ্য: Tracheobionta - Vascular plants
অধিবিভাগ: Spermatophyta - Seed plants
বিভাগ: Magnoliophyta - Flowering plants
শ্রেণী: Liliopsida - Monocotyledons
উপশ্রেণি: Arecidae.  
বর্গ: Pandanales.
পরিবার: Pandanaceae - Screw-pine family.
গণ: Pandanus L. f. - screwpine
প্রজাতি: Pandanus fascicularis Lam.
পরিচিতি: গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ। ১০-১৫ ফুট লম্বা হয়। কাণ্ড থেকে বের হয় শাখা প্রশাখা। পাতা পাঁচ-সাত ফুট লম্বা। ২-৩ ইঞ্চি চওড়া। পাতার কিনারায় করাতের মতী কাঁটা। অনেকটা আনারসের পাতার মতো। কাণ্ড সাদা রঙের ও সুগন্ধযুক্ত। ফল ৭-৮ ইঞ্চি লম্বা। ফল কমলা, পীত বা ধুসর হয়। জৈষ্ঠ-আষাঢ় মাসে ফুল হয়। বড় কেয়াগাছে আনারসের মতো ফল হয় আশ্বিন-কার্তিক মাসে। অনেকে এই ফল খায়কেতকী তিতা স্বাদের।
ব্যবহার: কেয়া পাতার রস ব্রণ, কুষ্ঠ, ডায়াবেটিস রোগে উপকারীফুলের তেল পেট ব্যথা কমাতে পারেবাংলায় বিরিয়ানী রান্না কেওড়ার জল ছাড়া সম্পূর্ণ হয় নাএই ফুল থেকেই বাস্পীভবন প্রক্রিয়ায় তৈরি হয় কেওড়ার জল (pandanus flower water)বিশেষ করে ভারতের রাজস্থানে এর সুগন্ধি বরফী, রসমালাই, রসগোল্লা, পিঠা সহ নানারকমের মিষ্টান্ন তৈরীতে ব্যবহার হয়এর ফল সহজে খাওয়া যায় না যদি তা চাষের না হয়। বুনো কেয়ার ফলে প্রচুর পরিমাণ ক্যালসিয়াম অকজ্যালেট থাকে যেমন থাকে কচুর ভেতর। এগুলো মুখে চুলকানি সৃষ্টি করে বলে সাধারণত আদার সঙ্গে জ্বাল দিয়ে নেয়া হয় এবং অনেক ক্ষেত্রে স্প্রেড হিশেবে ব্যবহার করা হয়।
আমাদের দেশের সাধারণ কেয়া Pandanus tectorius ফ্লোরিডাতে লাগানো হয়েছে। যে সব কেয়া কৃষিজাত করা হয়েছে সেগুলির ফলে অকজ্যালেট খুব কম থাকে, তাই সরাসরি মুখে দিয়ে খাওয়া যায়। এর সবচে সুগন্ধি জাতের নাম হচ্ছে Pandanus odoratissimus.
বিস্তৃতিঃ বাংলাদেশের সর্বত্র জন্মায়, তবে সমুদ্র উপকূলে বেশি দেখা যায়। বাংলাদেশ, ভারত, হাওয়াই, মালদ্বীপের সমুদ্র তীরে, জলার ধারে এগুলো বেশি হয়, তবে সম্পূর্ণ জলবিবর্জিত স্থানে এমন কি পাহাড়েও হতে পারে।
বিবিধঃ বাংলাদেশে আরেক প্রজাতি আছে যার নাম হলুদ কেয়াকাঁটা, Pandanus foetidus.

আরো পড়ুন:

. বাংলাদেশের ঔষধি উদ্ভিদের একটি বিস্তারিত পাঠ

. বাংলাদেশের পাখির তালিকা 

৪. বাংলাদেশের স্তন্যপায়ী প্রাণীর তালিকা

No comments:

Post a Comment