Monday, June 11, 2012

বোদো বা বাটাগুড় কাইট্টা বাংলাদেশ ও পৃথিবীর মহাবিপন্ন কচ্ছপ


বোদো বা বাটাগুর কাইট্টা,  Batagur Baska, ফটো: প্রথম আলো থেকে
বৈজ্ঞানিক নাম: Batagur baska;
সমনাম: Emys baska, Tetraonyx lessonii,
বাংলা নাম: বোদো বা বাটাগুড় কাইট্টা,
ইংরেজি নাম: Northern River Terrapin

জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
শ্রেণী: Reptilia
বর্গ: Testudines
পরিবার: Geoemydidae
গণ: Batagur Gray, 1855
প্রজাতি: Batagur baska (Gray, 1831).
ভূমিকা: বাংলাদেশের কচ্ছপের তালিকায় মোট ২৯ প্রজাতির কচ্ছপ, কাইট্টা ও কাছিম আছে। এদের মধ্যে আমাদের আলোচ্য মুকুটি নদ-কাছিম হচ্ছে একটি গুরুত্বপূর্ণ এবং সংকটাপন্ন প্রজাতি।
বর্ণনা: বোদো বা বাটাগুড় কাইট্টার দেহ অপেক্ষাকৃত বড়, দৈর্ঘ্য প্রায় ৬০ সেমি এবং ওজন ১৮ কেজি। পুরুষ কাইট্টার  কৃত্তিকাবর্ম বাদামী থেকে সবুজ; স্ত্রী কাইট্টার ক্ষেত্রে জল পাই-ধূসর রঙের; অপ্রাপ্তবয়স্ক কাইট্টার ক্ষেত্রে চোখ ধুসর থেকে বাদামী রঙের। মাথা ছোট, তুণ্ড উপরের দিকে বাঁকা ও সূচালো এবং বেশ প্রসারিত। কৃত্তিকাবর্ম নিচু, সম্মুখভাগ প্রায় শঙ্কু আকৃতির, পিছনের দিকের অংশ গোলাকৃতি এবং ১টি নুকাল, ৫টি মেরু, ৪ জোড়া বক্ষ (প্রতি পার্শ্বে ৪টি করে), ২২টি প্রান্তীয় (প্রতি পার্শ্বে ১১টি করে) এবং ১ জোড়া অধিলেজের শিল্ড থাকে। নুকাল শিল্ডের পিছনের অংশ দৈর্ঘ্যের তুলনায় কিছুটা বেশি প্রশস্ত। মেরু ২য় ও ৩য় শিল্ড প্রায় সমান এবং ৪র্থটি সবচেয়ে ছোট। মেরু শিল্ডের দৈর্ঘ্যের চেয়ে বেশি প্রশস্ত তবে প্রাপ্তবয়স্ক কাছিমের ক্ষেত্রে দৈর্ঘ্য ও প্রশস্ততা সমান।
স্বভাব ও আবাসস্থল: বোদো বা বাটাগুড় কাইট্টা উপকূলীয় মোহনার প্যারাবন, বড় ও ছোট নদীতে বিচরণ করে। তবে প্রজন ন ঋতুতে এরা ন দী থেকে দূরে চলে আসে। এদের প্রজন ন কাল সেপ্টেম্বর-নভেম্বর মাসে হয়। ডিসেম্বর-মার্চ মাস বাসায় থাকে। স্ত্রী কাছিম ডিম পাড়ার মৌসুমে ৫০-৬০টি ডিম পাড়ে এবং পরিস্ফুটনের সময় ৬০-৬৬ দিন। এটি মিঠা ও নোনা দুই ধরনের পানিতেই বাস করতে পারেএই ক্ষমতা অন্য কোনো কচ্ছপের নেই
বিস্তৃতি: বোদো বা বাটাগুড় কাইট্টা প্রজাতির বিস্তৃতি বাংলাদেশের সুন্দরবন অঞ্চল। এছাড়া ভারত, মায়ান মার মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যন্ড  ও কম্বোডিয়ায় পাওয়া যেত। বর্তমানে কেবল বাংলাদেশে পাওয়া যায়।
অবস্থা: বিশ্বব্যাপী এই প্রজাতির কাছিম মহাবিপন্নপ্রকৃতি সংরক্ষণ বিষয়ে কাজ করা সংগঠন ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অব নেচারের (আইইউসিএন) মহাবিপন্ন প্রাণীর তালিকায় রয়েছে বোদো বা বাটাগুড় কাইট্টার নামবাংলাদেশের ২০১২ সালের বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনানুসারে রক্ষিত বন্যপ্রাণীর তালিকায় তফসিল-১ অনুযায়ী এ প্রজাতি সংরক্ষিত।
বাংলাদেশে এর ইতিহাস: গত ৭ ও ৮ জুন, ২০১২ বাংলাদেশের গাজীপুরের ভাওয়াল জাতীয় উদ্যানের কচ্ছপ প্রজননকেন্দ্রে ডিম ফুটে বের হয়েছে বোদো বা বাটাগুড় কাইট্টার ২৫টি বাচ্চা। ভাওয়াল জাতীয় উদ্যানের কচ্ছপ প্রজননকেন্দ্রের পুকুরে দুই বছর ১৪টি পুরুষ ও পাঁচটি নারী কচ্ছপকে একসঙ্গে রাখা হয়েছিলউপকূলীয় এলাকার বিভিন্ন ব্যক্তিমালিকানার পুকুর ও সুন্দরবন থেকে গত ২০০৮-২০০১২ সালে কচ্ছপগুলো সংগ্রহ করা হয়এত দিন ধারণা করা হতো, এই প্রজাতির কচ্ছপ প্রকৃতির মুক্ত পরিবেশ ছাড়া বাচ্চা দেবে না
বাস্তুতান্ত্রিক ভূমিকা: কাইট্টা কচ্ছপ সুন্দরবন এলাকায় কেওড়াগাছের ফল খায় এবং এর বীজ ছড়িয়ে দেয়এভাবে এরা সুন্দরবনের প্রতিবেশব্যবস্থা টিকিয়ে রাখতে ও কেওড়া বনের বিস্তারে সহায়তা করে
অর্থনৈতিক গুরুত্ব: এক সময় সাবানশিল্পে চর্বি হিসেবে ব্যবহার করার জন্য এই কাইট্টা মাত্রাতিরিক্ত আহরণ করা হতো। বাংলাদেশে বিভিন্ন সম্প্রদায়ের লোক ও জেলেরা খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করেও এটিকে বিলুপ্তির পথে নিয়ে গেছে।

আরো পড়ুন:

No comments:

Post a Comment