Sunday, October 28, 2012

টাংগন নদী বাংলাদেশ ভারতের একটি আন্তঃসীমান্ত নদী




ঠাকুরগাঁওয়ে টাঙ্গন নদী
টাংগন নদী: টাংগন নদী বাংলাদেশ ভারতের একটি আন্তঃসীমান্ত নদী। এই নদীটি পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও ও দিনাজপুর জেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। নদীটির বাংলাদেশ অংশের দৈর্ঘ্য ১২৩ কিলোমিটার, গড় প্রস্থ ১২০ মিটার এবং নদীটির প্রকৃতি সর্পিলাকারবাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড বা পাউবো কর্তৃক টাংগন নদীর প্রদত্ত পরিচিতি নম্বর উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের নদী নং ৪৮।[১]

প্রবাহ: টাংগন নদী পঞ্চগড় জেলার পঞ্চগড় সদর উপজেলার মাগুরা ইউনিয়নের বিলাঞ্চল হতে উৎসারিত। অতঃপর নদীটি ঠাকুরগাঁও জেলাধীন পীরগঞ্জ উপজেলার বাইরচুনা ইউনিয়ন দিয়ে প্রবাহিত হয়ে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে প্রবেশ করেছে। মৌসুমি প্রকৃতির এ নদীতে বর্ষার সময় পর্যাপ্ত মাত্রায় পানি প্রবাহিত হয়। এ সময় নদীর পাড় উপচে তীরাঞ্চল প্লাবিত হয়ে থাকে এবং বিভিন্ন অংশে ভাঙনপ্রবণতা পরিলক্ষিত হয়। তবে শুষ্ক মৌসুমে নদীতে পানির প্রবাহ থাকে না। সোং ও সেনুয়া এই নদীর উপনদী।

অন্যান্য তথ্য: টাংগন নদী পঞ্চগড় সদর, আটোয়ারী, বোদা, ঠাকুরগাঁও সদর, পীরগঞ্জ ও বোচাগঞ্জ উপজেলা দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। নদীটি জোয়ারভাটা প্রভাবিত নয়। টাংগন নদীর অববাহিকার প্রকল্প হচ্ছে টাংগন ব্যারাজ সেচ প্রকল্প, ঠাকুরগাঁও শহর রক্ষা প্রকল্প এবং বুড়িবাঁধ সেচ প্রকল্প। ঠাকুরগাঁও পৌরসভা এই নদীর তীরে অবস্থিত। নদীটিতে ০.৯৫ কিলোমিটার বন্যানিয়ন্ত্রণ বাঁধ আছে।

তথ্যসূত্র:
১. মানিক, মোহাম্মদ রাজ্জাক (ফেব্রুয়ারি, ২০১৫)। বাংলাদেশের নদনদী: বর্তমান গতিপ্রকৃতিঢাকা: কথাপ্রকাশপৃ: ১১৮-১১৯।
 

No comments:

Post a Comment