Sunday, November 11, 2012

বেলী ফুল বাংলাদেশের আলংকারিক উদ্ভিদ



বেলী ফুল
বৈজ্ঞানিক নাম: Jasminium sambac
সমনাম: Nyctanthes sambac L.
Nyctanthes undulata L.
বাংলা নাম: বেলী, বনমল্লিকা, মালশি, মগরা।
ইংরেজি নামঃ Arabian Jasmine, Sambac Jasmine, Tuscan Jasmine.
আদিবাসি নাম: দেম-গোলা (চাকমা), আরুয়াক (গারো)

জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগ/রাজ্য: Plantae - Plants
উপরাজ্য: Tracheobionta - Vascular plants
অধিবিভাগ: Spermatophyta - Seed plants
বিভাগ: Magnoliophyta - Flowering plants
শ্রেণী: Magnoliopsida - Dicotyledons
উপশ্রেণি: Asteridae  
বর্গ: Scrophulariales
পরিবার: Oleaceae - Olive family
গণ: Jasminum L. - jasmine
প্রজাতি: Jasminum sambac (L.) Aiton - Arabian jasmine

পরিচিতি: বেলী গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ। ছোট, ঝোপাল গাছ, প্রায় ১ মিটার উঁচু। কচি ডাল রোমশ। পাতা একক, ডিম্বাকার, ৪-৮ সে. মি. লম্বা, গাঢ় সবুজ। গ্রীষ্ম ও বর্ষায় ফুল, কয়েকটি একটি থোকায়। ফুলের আকার ও গড়ন অনুসারে কয়েকটি প্রকারভেদ আছে। কলম ও শিকড় থেকে গজান চারায় চাষ। শীতে ছেঁটে দিতে হয়। টবেও ভালো থাকে।
বেলীকে অনেকে মনে করেন ‘বনমল্লিকা’ শব্দ থেকে উদ্ভূত; বনমল্লিকা> বল্লিকা > বেলীবেলী দুরকমের হয়আমাদের আলোচ্য বেলিটি বর্ষজীবী উদ্ভিদ, যাতে বৎসরে একবার ফুল হয়। একটি লতানো যা লতাবেলী (Jasminum subtriplinerve, heyneana) নামে পরিচিত। Oleaceae পরিবারের গাছে সারাবছরই প্রায় ফুল হতে দেখা যায়। বেলী গাছ দেখতে কদর্য, অধিকাংশ সময় পাতা থাকে না, আর কিছু পাতা থাকলেও তাতে শ্রী থাকে না। একসারি বা একটিয়া বেলীর পাপড়ি হালকা কিন্তু মোতিয়া বেলীর দল অনেক বেশী, দেখতে গোলাকার, শাদা মোতিসদৃশ।
ব্যবহার: বাড়ি বা প্রতিষ্ঠানের বাগানে চাষ করা হয়। স্বল্প জায়গায় লাগানো যায়, সুগন্ধি আছে। আলংকারিক হিসেবে ব্যবহার করা যায়।
বিস্তৃতি: সারা বাংলাদেশে দেখা যায়। এই গণের আরেকটি প্রজাতি হচ্ছে তারা জুঁই যেটিকেও বাংলাদেশে আলংকারিক উদ্ভিদ হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

No comments:

Post a Comment