Sunday, June 16, 2013

কুলিক নদী বাংলাদেশ ভারতের একটি আন্তঃসীমান্ত নদী




কুলিক নদী
কুলিক নদী বাংলাদেশ ভারতের একটি আন্তঃসীমান্ত নদী। এই নদীটি ঠাকুরগাঁও জেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। নদীটির দৈর্ঘ্য ৫৮ কিলোমিটার, গড় প্রস্থ ৬০ মিটার এবং নদীটির প্রকৃতি সর্পিলাকারবাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড বা পাউবো কর্তৃক কুলিক নদীর প্রদত্ত পরিচিতি নম্বর উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের নদী নং ২২।[১]

প্রবাহ: কুলিক নদী ঠাকুরগাঁও জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার দস্যু ইউনিয়নের বিলাঞ্চল হতে উৎপত্তি লাভ করে একই জেলার হরিপুর উপজেলার ভাতুরিয়া ইউনিয়ন দিয়ে প্রবাহিত হয়ে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে প্রবেশ করেছে। এই নদীতে সারাবছর পানির প্রবাহ থাকে। তবে ডিসেম্বর মার্চ মাসে এই প্রবাহ মারাত্মকভাবে হ্রাস পায়। বর্ষাকালে পরিপূর্ণ মাত্রায় পানি প্রবাহিত হয়। এ সময় নদীর বিভিন্ন অংশে বন্যার প্রভাব ও ভাঙনপ্রবণতা পরিলক্ষিত হয়। বর্তমানে পানি প্রবাহের পরিমাণ অতীতের তুলনায় অনেক কমে গেছে এবং নদীর তলদেশ পলির প্রভাবে ভরাট হয়ে যাচ্ছে। তীরে ফসলি জমির সম্প্রসারণের কারণে নদীর প্রশস্ততা ক্রমশ সংকুচিত হয়ে পড়ছে।
অন্যান্য তথ্য:  কুলিক নদী ঠাকুরগাঁও সদর, বালিয়াডাংগী, রাণীশনকৈল ও হরিপুর উপজেলা দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে।  এই নদীটি জোয়ারভাটার প্রভাবে প্রভাবিত নয় এবং নদীতে কোনো বন্যানিয়ন্ত্রণ বাঁধ নেই। নদী অববাহিকায় কোনো প্রকল্প নেই। রাণীশনকৈল পৌরসভা এই নদীর তীরে অবস্থিত। 

তথ্যসূত্র:
১. মানিক, মোহাম্মদ রাজ্জাক, বাংলাদেশের নদনদী: বর্তমান গতিপ্রকৃতি, কথাপ্রকাশ, ফেব্রুয়ারি, ২০১৫, ঢাকা, পৃ: ১০০-১০১।

No comments:

Post a Comment

জনপ্রিয় দশটি লেখা, গত সাত দিনের

Recommended