Monday, September 02, 2013

বৃষ্টি বটেরা বাংলাদেশের বিরল আবাসিক পাখি




বৃষ্টি বটেরা, ফটো: ইংরেজি উইকিপিডিয়া থেকে
বৈজ্ঞানিক নাম: Coturnix coromandelica
সমনাম: Coturnix coromandelicus Gmelin, 1789
বাংলা নাম: বৃষ্টি বটেরা
ইংরেজি নাম: Rain Quail (Black-breasted Quail)

জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্য Kingdom: Animalia
বিভাগ/Phylum: Chordata
শ্রেণী/Class: Aves
পরিবার/Family: Phasianidae
গণ/Genus: Coturnix, Bonnaterre, 1791;
প্রজাতি/Species: Coturnix coromandelica (Gmelin, 1789)


ভূমিকাঃ বাংলাদেশের পাখির তালিকাCoturnix গণে মোট যে তিনটি প্রজাতি পাওয়া যায় সেগুলো হলও, ১. রাজ বটেরা, ২. বৃষ্টি বটেরা ও ৩. পাতি বটেরা। আমাদের আলোচ্য হলও নিম্নোক্ত বৃষ্টি বটেরা।
বর্ণনা: বৃষ্টি বটেরা ছোট্ট বাদামি ভূচর পাখি (দৈর্ঘ্য ১৮ সেমি, ওজন ৭৫ গ্রাম, ডানা ৯.৫ সেমি, ঠোঁট ১.৩ সেমি, লেজ ৩ সেমি)পুরুষ ও স্ত্রীপাখির চেহারা ভিন্নপুরুষপাখির মুখ কালচে; সাদা কালো নকশা করা মাথা; গলায় কালো নোঙর-চিহ্ন আঁকা; চক্ষু-রেখা কালো; সাদা গালের নিচে কালো দাগ; গলা ঘোর কালো; ঘাড়ের পাশ ও বুক দারুচিনি-পাটকিলে; বুক ও পেটের উপরের অংশে কালো ছোপ; এবং বগলে কালো ছিটা-দাগস্ত্রীপাখির বুক হালকা পীত রঙের; গলায় কালো নোঙর-চিহ্ন নেই; এবং ডানার প্রান্ত-পালকে ডোরা থাকেনাপুরুষ ও স্ত্রীপাখি উভয়ের চোখ গাঢ় বাদামি; ঠোঁটের গোড়া ফিকে, বাকি ঠোঁট কালো কিংবা শিঙ-কালো; এবং পা ও পায়ের পাতা মেটে কিংবা মেটে-ধূসর
স্বভাব: বৃষ্টি বটেরা সাধারণত তৃণভূমি, কৃষি খামার ও ঝোপে বিচরণ করে; এবং সচরাচর একা কিংবা জোড়ায় থাকেএরা ঘাসে, শস্যে ও ঝোপে হেঁটে খাবার খুঁজে বেড়ায়; খাদ্যতালিকায় রয়েছে বীজ, শস্যদানা ও পোকামাকড়মাঝে মাঝে এরা উচ্চ স্বরে ডাকে: হুইট-হুইট...; ভয় পেলে তীক্ষ্ণ স্বরে শিস দেয়; এবং মনোহর সুরে গানগায়: হুইচ-হুইচ, হুইচ-হুইচ...মার্চ-অক্টোবর মাসের প্রজনন মৌসুমে পুরুষপাখি ঝোপের মধ্যে ঊষা ও গোধূলিতে গান গায়এরা ভূমির প্রাকৃতিক গর্ত কিংবা খোদলে লতাপাতা দিয়ে বাসা বানিয়ে ডিম পাড়েডিমগুলো গাঢ় হলদে-বাদামি থেকে লালচে-বাদামি, মাঝে মাঝে তামাটে-বাদামি ফুসকুড়ি থাকে; সংখ্যায় ৬-১১টি, মাপ ২.৭ - ২.১ সেমিস্ত্রীপাখি একাই ডিমে তা দেয়; ১৮-১৯ দিনে ডিম ফোটে
বিস্তৃতি: বৃষ্টি বটেরা বাংলাদেশের বিরল আবাসিক পাখি; চট্টগ্রাম ও ঢাকা বিভাগের তৃণভূমিতে পাওয়া যায়পাকিস্তান, ভারত, নেপাল, শ্রীলংকা, মিয়ানমার ও থাইল্যান্ড-সহ দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মধ্যে এ পাখির বিস্তৃতি
অবস্থা: বৃষ্টি বটেরা বিশ্বে বিপদমুক্ত ও বাংলাদেশে অপ্রতুল-তথ্য শ্রেণিতে রয়েছেবাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে প্রজাতিটি সংরক্ষিত
বিবিধ: বৃষ্টি বটেরার বৈজ্ঞানিক নামের অর্থ কোরোম্যান্ডেল-এর বটেরা (ল্যাটিন: Coturnix = বটেরা; coromandelica = চেন্নাই-এর করমন্ডল উপকূল, ভারত)

No comments:

Post a Comment