Monday, September 02, 2013

ধলাগাল বাতাই বাংলাদেশের বিরল আবাসিক পাখি





ধলাগাল বাতাই, Photo: Sourav Mahmud
বৈজ্ঞানিক নাম : Arborophila atrogularis
সমনাম : Arboricola atrogularis Blyth,1849
বাংলা নাম : ধলাগাল বাতাই, সাদাচিবুক তিতির
ইংরেজি নাম : White-cheeked Partridge

জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্য Kingdom: Animalia
বিভাগ/Phylum: Chordata
শ্রেণী/Class: Aves
পরিবার/Family: Phasianidae
গণ/Genus: Arborophila, Hodgson, 1837;
প্রজাতি/Species: Arborophila atrogularis (Blyth, 1849)

ভূমিকাঃ বাংলাদেশের পাখির তালিকাArborophila গণে মোট যে দুটি প্রজাতি পাওয়া যায় সেগুলো হলও, ১.  ধলাগাল বাতাই , ২. লালগলা বাতাই। আমাদের আলোচ্য হলও নিম্নোক্ত পাখি ধলাগাল বাতাই।
বর্ণনা: ধলাগাল বাতাই সাদা গালওয়ালা ছোট্ট ভূচর পাখি (দৈর্ঘ্য ২৮ সেমি, ওজন ২৫৫ গ্রাম, ডানা ১৩.৭ সেমি, ঠোঁট ২ সেমি, পা ৪.৩ সেমি, লেজ ৬.২ সেমি) প্রাপ্তবয়স্ক পাখির ধূসর কপাল, জলপাই-বাদামি চাঁদি, ও ঘাড়ের নিচ দিক কমলা হলুদে মেশানো; পুরো পিঠ কালো দাগসহ হালকা বাদামি; ভ্রু-রেখা ধূসর; চোখের কাছে কালো ডোরা, চোখের পাতা লালচে পীতবর্ণের; গাল সাদা; কাঁধে কালো ও লালচে ডোরা; বগল ও বুকে ধূসর রঙের ওপর কালো সাদা দাগ; তলপেট কালো; লেজতল-ঢাকনির সাদা প্রান্তসহ লাল পালকে কালো চিতি; চোখ বাদামি বা লালচে বাদামি; এবং চক্ষুগোলক ও থুতনির নিচের চামড়া উজ্জ্বল পাটল বর্ণের হয় পুরুষপাখির ঠোঁট কালো, পা ও পায়ের পাতা অনুজ্জ্বল গোলাপি থেকে মোমের মত অনুজ্জ্বল হলুদ
স্বভাব: ধলাগাল বাতাই চিরসবুজ বনতলের ঝোপ ও বাঁশবনে বিচরণ করে; সাধারণত ছোট দলে দেখা যায়এরা খোলা মাঠে লতাপাতা থেকে খাবার সংগ্রহ করে; খাদ্যতালিকায় আছে বীজ, রসালো ফল, কচিকুঁড়ি, পোকামাকড় ও ক্ষুদ্র শামুকজাতীয় প্রাণীভয় পেলে প্লত দৌড়ে পাতার নিচে বা ঝোপে লুকিয়ে যায়প্রায়ই তারা শিস দিয়ে গোধূলিতে ডাকে: হুইও-হুইও.. ও উচ্চ স্বরে শিস দিয়ে গান গায়মার্চ-এপ্রিল মাসের প্রজনন মৌসুমে এরা বনের ভিতরের ক্ষুদ্র ঝোপ, ঘাস ও বাঁশবনে মাটির গর্তে পাতা ও ঘাস দিয়ে বাসা বানিয়ে ডিম পাড়েডিমগুলো সাদা, সংখ্যায় ৪-৫টি, মাপ ৩.৭ দ্ধ ২.৮ সেমিস্ত্রীপাখি একাই ডিমে তা দেয়
বিস্তৃতি: ধলাগাল বাতাই বাংলাদেশের বিরল আবাসিক পাখি; সিলেট বিভাগের চিরসবুজ বনে চোখে পড়ে; অতীতে চট্টগ্রাম বিভাগেও ছিলএ দেশ ছাড়া কেবলমাত্র ভারত, চিন ও মিয়ানমারে পাখিটির বিস্তৃতি রয়েছে

অবস্থা: ধলাগাল বাতাইকে আই. ইউ. সি. এন. এই প্রজাতিটিকে Near Threatened বা প্রায়-বিপদগ্রস্ত বলে ঘোষণা করেছে এটি বাংলাদেশে অপ্রতুল-তথ্য শ্রেণিতে রয়েছেবাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে এ প্রজাতি সংরক্ষিত
বিবিধ: ধলাগাল বাতাই পাখির বৈজ্ঞানিক নামের অর্থ কালো-গলার বৃক্ষপ্রেমী তিতির (ল্যাটিন : arbor = বৃক্ষ, গ্রিক : philos = প্রিয় , ল্যাটিন : ater = কালো, gula = গলা)
বাংলাদেশে উদ্ভিদ ও প্রাণি জ্ঞানকোষে এই নিবন্ধটির লেখক সাজেদা বেগম। 
Photo History: Found in mixed ever green forest of Sylhet Division and considered Rare Resident and Data deficient species in Bangladesh. Photo captured from Srimangol, April, 2011.


আরো পড়ুন:

. বাংলাদেশের পাখির তালিকা 

. বাংলাদেশের স্তন্যপায়ী প্রাণীর তালিকা

৩. বাংলাদেশের ঔষধি উদ্ভিদের একটি বিস্তারিত পাঠ

৪. বাংলাদেশের ফলবৈচিত্র্যের একটি বিস্তারিত পাঠ  

No comments:

Post a Comment

জনপ্রিয় দশটি লেখা, গত সাত দিনের

Recommended