Wednesday, October 16, 2013

ইউরোকমিউনিজম ইউরোপের এক সংশোধনবাদী ধারার নাম





জওর্জো নেপোলিটানো, ইউরোকমিউনিজমের ধ্বজাধারী ইতালির ভুয়া-কমিউনিস্ট

ইউরোকমিউনিজম, ইংরেজিতে Eurocommunism, হলো ইউরোপের কতকগুলো কমিউনিস্ট পার্টি, বিশেষভাবে ইতালি, স্পেন এবং ফ্রান্সের কমিউনিস্ট পার্টি ইউরোপের জন্য যে মার্কসবাদী প্রয়োগকে আলাদাভাবে চিহ্নিত করে তার নাম। মূলত ১৯৫৬ সনের পরে চিন-সোভিয়েত মহাবিতর্ক, হাঙ্গেরির অভ্যুত্থান এবং রুশ অর্থনীতির ব্যাপক পরিবর্তনকে ঘিরে ইউরোপে নানা রকমের ভাবনার সূত্রপাত হয়। আর এক্ষেত্রে ইতালিই এই ভাবনার পথিকৃৎরূপে আবির্ভূত হয়। যুগোস্লাভ এক সাংবাদিক ফ্রেন বারবিয়েরি প্রথম ১৯৭৫ সালের গ্রীষ্মে এই ভাবনাকে ইউরোকমিউনিজম নাম দেন।
১৯৭০ সালেই এই ভাবনা স্পষ্টভাবে বিকশিত হয়। এই মতানুসারে রাশিয়ার বলশেভিক আদর্শকে সেই দেশের বিশেষ অভিজ্ঞতা বলে চিহ্নিত করা হয়। ইউরোকমিউনিস্টরা ঘোষণা করে বলশেভিকবাদ সমগ্র বিশ্বের মার্কসবাদী আদর্শ হতে পারে না, ইউরোপে তো নয়ই। তারা বলে প্রলেতারিয়েতের একনায়কত্ব অপ্রয়োজনীয়। প্রলেতারিয়েতের একদলীয় শাসনের পরিবর্তে গণতান্ত্রিক উদারতাই বেশি কাম্য। গণতান্ত্রিক পথে, সংসদীয় উপায়েই সমাজতন্ত্র আসবে।
ইতালির কমিউনিস্ট পার্টি গণতান্ত্রিক সংস্কারের আওয়াজ তোলে। অন্যান্য দলের সাথে ঐক্যবদ্ধ হয়। স্পেনের কমিউনিস্ট পার্টি ফ্রান্সিসকো ফ্রাঙ্কোর হাত থেকে মুক্তি পেয়ে সমাজ-গণতন্ত্রী সরকারের দেশ গঠনের উন্নয়ন কর্মযজ্ঞে নেমে পড়ে। ফ্রান্সের কমিউনিস্ট পার্টি সমাজতন্ত্রীদের সাথে এক মঞ্চে দাঁড়িয়ে ক্ষমতায় আসার চেষ্টা করে। লেনিনবাদকে ইউরোকমিউনিজমের দৃষ্টিভঙ্গিতে মার্কসবাদের আবশ্যকীয় উন্নত ধারা বলে গ্রহণ করা হয় না। তাকে রুশ অভিজ্ঞতার চরিত্রে দেখা হয়। আন্তোনিও গ্রামসির চিন্তাধারা ইউরোকমিউনিজমের তত্ত্বের ভিত্তি হিসেবে বিবেচিত হয় এবং এই তত্ত্বকে প্রভাবিত করে। গ্রামসির পর থেকেই সমাজে মধ্যস্তরের ভূমিকা ইউরোপে গুরুত্বপূর্ণ বলে অনুভূত হয়।
স্পেনের কমিউনিস্ট পার্টির সংশোধনবাদী নেতা সান্তিয়াগো কেরিল্লো (১৯১৫ ২০১২) ১৯৭৭ সালে ইউরোকমিউনিজম ও রাষ্ট্র নামে এই ভাবনার সংজ্ঞা প্রদানকারী একটি বই লেখেন। বিশ শতকের সাত ও আটের দশকজুড়ে ইউরোকমিউনিজমের বাড়বাড়ন্ত রূপ দেখা যায় যখন পশ্চিম ইউরোপের পার্টিগুলোতে যারা সোভিয়েতের লেনিনবাদী নীতি ও তত্ত্ব থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে তাদের নিজেদের সমাজপরিবর্তনের নীতি বেছে নেয়। তারা প্রলেতারিয়েতের আন্তর্জাতিকতাবাদের নীতির বিরোধিতা করে ইউরোপের কমিউনিস্ট পার্টিগুলোর স্বাতন্ত্র্যের কথা বলতে থাকে। এভাবেই ইউরোপে ইউরোকমিউনিজমের নামে মার্কসবাদ-লেনিনবাদ-মাওবাদের কবর রচিত হয়।

No comments:

Post a Comment