Wednesday, December 04, 2013

বৈকাল তিলিহাঁস বাংলাদেশের অনিয়মিত পাখি




বৈকাল তিলিহাঁস, ফটো: ইংরেজি উইকিপিডিয়া থেকে
দ্বিপদ নাম: Anas formosa
সমনাম: নেই
বাংলা নাম: বৈকাল তিলিহাঁস
ইংরেজি নাম: Baikal Teal

জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্যKingdom: Animalia
বিভাগ/Phylum: Chordata
শ্রেণী/Class: Aves
পরিবার/Family: Anatidae
গণ/Genus: Anas, Linnaeus, 1758;
প্রজাতি/Species: Anas formosa Georgi, 1775
ভূমিকাঃ বাংলাদেশের পাখির তালিকা Anas গণে বাংলাদেশে রয়েছে ১০টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে ৪২টি প্রজাতি রয়েছে। বাংলাদেশর নিম্নোক্ত ১০টি প্রজাতি হচ্ছে ১. উত্তুরে ল্যাঞ্জাহাঁস, ২. উত্তুরে খুন্তেহাঁস, ৩. পাতি তিলিহাঁস, ৪. ফুলুরি হাঁস, ৫. বৈকাল তিলিহাঁস, ৬. ইউরেশীয় সিঁথিহাঁস, ৭. নীলমাথা হাঁস, ৮. দেশি মেটেহাঁস, ৯. গিরিয়া হাঁস ও ১০. পিয়াং হাঁস। আমাদের আলোচ্য হাঁসটি হচ্ছে বৈকাল তিলিহাঁস
বর্ণনা: বৈকাল তিলিহাঁস রঙিন এক খুদে হাঁস (দৈর্ঘ্য ৪১ সেমি, ওজন ২০০ গ্রাম, ডানা ২১.৫ সেমি, ঠোঁট ৩.৫ সেমি, পা ৩.৩ সেমি, লেজ ৯ সেমি)ছেলে মেয়েপাখির চেহারায় পার্থক্য আছেপ্রজননকালে ছেলেহাঁসের মাথায় ও মুখে নানা রঙের নকশা হয়; মাথার চাঁদি, ঘাড়, ঘাড়ের পিছনভাগ ও গলা কালো; পীতাভ মুখে দুটি স্পষ্ট পট্টি থাকে: কালো খাড়া এক পট্টি চোখ থেকে নেমে গলায় ও সবুজ এক পট্টি চোখের পিছন থেকে মাথার পাশ দিয়ে চলে যায়; বুকে কালো ফুটকি; বগল ধূসর; পেট সাদা; ব্রঞ্জ-সবুজে মেশানো ডানার পতাকা; এবং লেজের তলায় স্লেট-রঙমেয়েহাঁসের দেহ বাদামি; মাথার কালচে চাঁদি ও ঠোঁটের গোড়ায় সাদা পট্টি আছেছেলে মেয়েহাঁসের উভয়ের চোখ বাদামি; ঠোঁট কালচে-নীল বা কালো; এবং পা ও পায়ের পাতা স্লেট-নীলপ্রজননকাল ছাড়া ছেলেহাঁসের লালচে বুক ও বগল ছাড়া দেখতে মেয়েহাঁসের মতঠোঁটের গোড়ায় সাদা পট্টি ছাড়া অপ্রাপ্তবয়স্ক হাঁসও দেখতে মেয়েহাঁসের মত
স্বভাব: বৈকাল তিলিহাঁস লতাপাতা-সমৃদ্ধ মিঠাপানির বড় জলাভূমিতে বিচরণ করে; সাধারণত একা, জোড়ায় বা অন্য হাঁসের দলে মিশে থাকতে দেখা যায়পানিতে মাথা ডুবিয়ে খাবার খোঁজে; খাদ্যতালিকায় রয়েছে জলজ উদ্ভিদের পাতা, মূল, কচিকা- ও বীজ, পোকামাকড়, কেঁচো, শামুক-জাতীয় প্রাণী, ইত্যাদিপ্রয়োজনে পানি থেকে এরা খাড়া উঠে যেতে পারে; ঘন ঘন ডানা সঞ্চালন করে প্লত উড়ে যায়প্রজনন ঋতুতে পুরুষহাঁসেরা মুরগির মত ডাকে: ওট-ওট-ওট... এবং স্ত্রীহাঁসেরা নিচু কম্পিত কণ্ঠে সাড়া দেয়গ্রীষ্মে এরা সাইবেরিয়ার পূর্বাঞ্চলে পানির ধারে উঁচু ঘাসের জমিতে বাসা করে ডিম পাড়েডিমগুলো সবুজাভ-ধূসর; সংখ্যায় ৮-১০টি
বিস্তৃতি: বৈকাল তিলিহাঁস বাংলাদেশের অনিয়মিত পাখি; শীতে ঢাকা ও সিলেট বিভাগের জলাশয়ে দেখতে পাওয়ার দুটি তথ্য রয়েছেপৃথিবীতে এর বিস্তৃতি কেবল এশিয়ার সাইবেরিয়া, চিন, কোরিয়া ও জাপানে সীমাবদ্ধ; পাকিস্তান, ভারত নেপাল ও মিয়ানমারে কালেভদ্রে আসে
অবস্থা: বৈকাল তিলিহাঁস বিশ্বে সংকটাপন্ন বলে বিবেচিতবাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে একে সংরক্ষিত ঘোষণা করা হয় নি
বিবিধ: বৈকাল তিলিহাঁসের বৈজ্ঞানিক নামের অর্থ সুন্দর হাঁস (ল্যাটিন : Anas = হাঁস, formosus = সুন্দর)

No comments:

Post a Comment

জনপ্রিয় দশটি লেখা, গত সাত দিনের

Recommended