Wednesday, December 11, 2013

মরচেরঙ ভুতিহাঁস বাংলাদেশের সুলভ পরিযায়ী পাখি



মরচেরঙ ভুতিহাঁস, ছেলে ফটো: ইংরেজি উইকিপিডিয়া থেকে
দ্বিপদ নাম: Aythya nyroca
সমনাম: Anas nyroca, Guldenstadt, 1770
বাংলা নাম: মরচেরঙ ভুতিহাঁস 
ইংরেজি নাম: Ferruginous Duck (Ferruginous Pochard, White-eyed Pochard).

জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্যKingdom: Animalia
বিভাগ/Phylum: Chordata
শ্রেণী/Class: Aves
পরিবার/Family: Anatidae
গণ/Genus: Aythya, Boie, 1822;
প্রজাতি/Species: Aythya nyroca (Guldenstadt, 1770)
ভূমিকাঃ বাংলাদেশের পাখির তালিকা Aythya গণে পৃথিবীতে রয়েছে ১২টি প্রজাতি এবং বাংলাদেশে রয়েছে ৫টি প্রজাতি। সেগুলো হচ্ছে, ১. বেয়ারের ভুতিহাঁস, ২. পাতি ভুতিহাঁস, ৩. টিকি হাঁস, ৪. বড় স্কপ ও ৫. মরচেরঙ ভুতিহাঁস। আমাদের আলোচ্য এই হাঁসটি হচ্ছে মরচেরঙ ভুতিহাঁস
বর্ণনা: মরচেরঙ ভুতিহাঁস তামাটে মাথা,বুক ও বগলওয়ালা কালচে বাদামি হাঁস (দৈর্ঘ্য ৪১ সেমি, ওজন ৬০০ গ্রাম, ডানা ১৮.৫ সেমি, ঠোঁট ৩.৯ সেমি, পা ৩.১ সেমি, লেজ ৫.৫ সেমি)প্রজননশীল ছেলেহাঁসের পিঠ ঘন বাদামিমাথা, ঘাড় ও বুক অতি তামাটে এবং লেজতলের কোভার্ট সাদাঠোঁট অনুজ্জ্বল স্লেট-রঙের বা নীলচে-কালোচোখ সাদা বা হলুদপা ও পায়ের পাতা ধূসর বা সবুজ, তবে মধ্যে মধ্যে সন্ধিস্থলে চিতি দেখা যায়অপ্রজননশীল ছেলেহাঁসের মাথা, ঘাড়, বুক ও বগল অনুজ্জ্বল তামাটে এবং চোখ কালচেমেয়েহাঁসের অনুজ্জ্বল তামাটে-বাদামি মাথা, ঘাড় ও বুক ছাড়া অপ্রজননশীল ছেলেহাঁসের সঙ্গে চেহারার কোনো পার্থক্য নেইউভয় হাঁসেরই ডানায় সাদা ডোরা ও পার্থক্যসূচক অঙ্গ পেট সাদাঅপ্রাপ্তবয়স্ক হাঁসের চেহারা মেয়েহাঁসের মত হলেও তুলনামূলকভাবে বেশ বাদামি
মরচেরঙ ভুতিহাঁস, মেয়ে, ফটো ইংরেজি উইকিপিডিয়া থেকে
স্বভাব: মরচেরঙ ভুতিহাঁস হাওর, বিল, নদী, মিঠাপানির ডোবা, জলাধার ও লেগুনে বিচরণ করে; শীতের আবাসে বড় বড় দলে থাকে এবং প্রায়ই নানা জাতের হাঁসের বড় দলে দেখা যায়সাঁতার কেটে, মাথা ডুবিয়ে ও ডুব দিয়ে পানির নিচে গিয়ে খাদ্য সংগ্রহ করে; খাদ্যতালিকায় রয়েছে জলজ উদ্ভিদের কচিকাণ্ড, কন্দ, পাতা, বীজ, কেঁচো, জলজ পোকামাকড়, লার্ভা, চিংড়ি, ইত্যাদিশীতের আবাসে এরা কদাচিৎ কর্কশ গলায় ডাকে: কেররর..মে-জুলাই মাসের প্রজনন ঋতুতে মধ্য ইউরোপ ও মধ্য এশিয়ায় নলবনে পানির ধারে নল ও উদ্ভিদের স্তুপ বানিয়ে তার ওপর সরু ঘাস ও কোমল পালকের বাসা বানিয়ে এরা ডিম পাড়েডিমগুলো পীতাভ;সংখ্যায় ৬-১২টি; মাপ ৫.১ ´ ৩.৭ সেমি২৫-২৭ দিনে ডিম ফোটে এবং ৫৫-৬০ দিনে ছানারা উড়তে পারে
বিস্তৃতি: মরচেরঙ ভুতিহাঁস বাংলাদেশেসুলভ পরিযায়ী পাখি; শীতকালে বরিশাল, চট্টগ্রাম,ঢাকা ও সিলেট বিভাগের হাওর ও বিলে বিচরণ করেআফ্রিকা, ইউরোপ ও এশিয়ায় এর বৈশ্বিক বিস্তৃতি রয়েছে; এশিয়া মহাদেশে তুর্কি, রাশিয়া, ইরান, আরব, আফগানিস্তান, চিন, পাকিস্তান, ভারত, নেপাল,ভুটান ও মালদ্বীপে রয়েছে
অবস্থা: মরচেরঙ ভুতিহাঁস বিশ্বে প্রায়-বিপদগ্রস্ত পাখিএ প্রজাতিটিকে বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী আইনে সংরক্ষিত ঘোষণা করা হয়নি
বিবিধ: মরচেরঙ ভুতিহাঁসের বৈজ্ঞানিক নামের অর্থ হাঁস (গ্রীক: aithua = সামুদ্রিক পাখি - এরিস্টটলের উল্লেখানুসারে ; রাশিয়ান: nyroca = হাঁস)

No comments:

Post a Comment