Friday, December 06, 2013

গিরিয়া হাঁস বাংলাদেশের সুলভ পরিযায়ী পাখি



গিরিয়া হাঁস, ছেলে, ফটো: ইংরেজি উইকিপিডিয়া থেকে
দ্বিপদ নাম: Anas querquedula
সমনাম: নেই
বাংলা নাম: গিরিয়া হাঁস,
ইংরেজি নাম: Garganey

জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্যKingdom: Animalia
বিভাগ/Phylum: Chordata
শ্রেণী/Class: Aves
পরিবার/Family: Anatidae
গণ/Genus: Anas, Linnaeus, 1758;
প্রজাতি/Species: Anas querquedula Linnaeus, 1758
ভূমিকাঃ বাংলাদেশের পাখির তালিকা Anas গণে বাংলাদেশে রয়েছে ১০টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে ৪২টি প্রজাতি রয়েছে। বাংলাদেশর নিম্নোক্ত ১০টি প্রজাতি হচ্ছে ১. উত্তুরে ল্যাঞ্জাহাঁস, ২. উত্তুরে খুন্তেহাঁস, ৩. পাতি তিলিহাঁস, ৪. ফুলুরি হাঁস, ৫. বৈকাল তিলিহাঁস, ৬. ইউরেশীয় সিঁথিহাঁস, ৭. নীলমাথা হাঁস, ৮. দেশি মেটেহাঁস, ৯. গিরিয়া হাঁস ও ১০. পিয়াং হাঁস। আমাদের আলোচ্য হাঁসটি হচ্ছে গিরিয়া হাঁস।
বর্ণনা: গিরিয়া হাঁস দর্শনীয় ভ্রু-রেখা আঁকা ছোট হাঁস (দৈর্ঘ্য ৩৯ সেমি, ওজন ৩৫০ গ্রাম, ডানা ১৮.৫ সেমি, ঠোঁট ৩.৭ সেমি, পা ২.৮ সেমি, লেজ ৬.৫ সেমি)ছেলে মেয়েহাঁসের চেহারায় কিছু পার্থক্য রয়েছে প্রজননকালে ছেলেহাঁসের বাদামি মাথায় বড় সাদা ভ্রু-রেখা; ধূসর বগল; কালো কালো বুটি ওয়ালা খলেরি বুক ও পেট; পেটের মাঝ থেকে হঠাৎ করে সাদা; ওড়ার সময় ডানার সামনের রূপালি প্রান্ত নজরে পড়েমেয়েহাঁসের হালকা বাদামি দেহ; এবং অস্পষ্ট ভ্রু-রেখা ছেলে মেয়েহাঁসের উভয়ের কালচে বাদামি ঠোঁট, ও ঘন বাদামি চোখপ্রজননকাল ছাড়া ছেলেহাঁসেরা অনেকটা মেয়েহাঁসের মত দেখতে, যদিও ডানার রঙয়ে কিছু পার্থক্য থাকেঅপ্রাপ্তবয়স্ক ছেলেহাঁসের ডানার পতাকা ও বাদামি দেহতল ছাড়া দেখতে মেয়েহাঁসের মত
গিরিয়া হাঁস, মেয়ে, ফটো: ইংরেজি উইকিপিডিয়া থেকে
স্বভাব: গিরিয়া হাঁস হ্রদ, লেগুন, জলা, উদ্ভিদ ও আর্দ্র ঘাস সম্বলিত প্লাবনভূমি ইত্যাদিতে বিচরণ করে; সাধারণত অন্যান্য হাঁসের মিশ্রদলে দেখা যায়এরা হেঁটে অথবা পানিতে মাথা ডুবিয়ে আহার খোঁজে; খাদ্যতালিকায় রয়েছে বীজ, পাতা, অঙ্কুরিত পাতা, ঘাসের পত্রফলক, পোকামাকড়, লার্ভা, কীট ও শামুকখাদ্যের জন্য পানিতে ডুব না দিলেও এরা বিপদে খুব ভালভাবেই ডুব দেয়এরা উড়লে হিস্ হিস্ করে ডানার শব্দ হয়ছেলেহাঁস ঝিঁঝিঁ পোকার মত ডাকে ও মেয়েহাঁস ডাকে: ওয়ায়েহ...এপ্রিল-মে মাসের প্রজনন ঋতুতে ইউরোপ ও সাইবেরিয়ায় তুন্দ্রা অঞ্চলে মাটিতে তৃণলতা বা ঘাসবনে ঘাস ও পালকের বাসা করে এরা ডিম পাড়েডিম হালকা পীত বর্ণের, সংখ্যায় ১১-১২টি, মাপ ৪.৫ × ৩.২ সেমি২১-২৩ দিনে ডিম ফোটে৩৫-৪০ দিনে গিরিয়া হাঁসের ছানার গায়ে ওড়ার পালক গজায়
বিস্তৃতি: গিরিয়া হাঁস বাংলাদেশের সুলভ পরিযায়ী পাখি; শীতে সব বিভাগের সকল জলাভূমিতে পাওয়া যায়পৃথিবীতে এর বিস্তৃতি ইউরোপ, আফ্রিকা ও এশিয়া; ভারত উপমহাদেশের সব দেশে পাওয়া যায়
অবস্থা: গিরিয়া হাঁস বিশ্বে বিপদমুক্ত বলে বিবেচিতবাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে এ প্রজাতি সংরক্ষিত
বিবিধ: গিরিয়া হাঁসের বৈজ্ঞানিক নামের অর্থ হাঁস (ল্যাটিন: Anas = হাঁস,  querquedula = এক প্রকারের হাঁস)

No comments:

Post a Comment