Saturday, December 21, 2013

হিমালয়ী কাঠঠোকরা বাংলাদেশের বিরল আবাসিক পাখি



হিমালয়ী কাঠঠোকরা, ফটো: ইংরেজি উইকিপিডিয়া থেকে
দ্বিপদ নাম: Dinopium shorii
সমনাম: Picus shorii Vigors, 1832
বাংলা নাম: হিমালয়ী কাঠঠোকরা
ইংরেজি নাম: Himalayan Goldenback (Himalayan flameback).

জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্যKingdom: Animalia
বিভাগ/Phylum: Chordata
শ্রেণী/Class: Aves
পরিবার/Family: Picidae
গণ/Genus: Dinopium, Rafinesque, 1814;
প্রজাতি/Species: Dinopium shorii (Vigors, 1832)
ভূমিকাঃ বাংলাদেশের পাখির তালিকাDinopium গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ৩টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে ৪টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতি তিনটি হচ্ছে, ১. বাংলা কাঠঠোকরা,. পাতি কাঠঠোকরা ও ৩. হিমালয়ী কাঠঠোকরা। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে হিমালয়ী কাঠঠোকরা
বর্ণনা: হিমালয়ী কাঠঠোকরা তিন আঙুলে গাছ আঁকড়ে চলা কাঠঠোকরা (দৈর্ঘ্য ৩১ সেমি, ওৎন ১১০ গ্রাম, ডানা ১৫.৮ সেমি, ঠোঁট ৪ সেমি, লেজ ১০ সেমি) প্রাপ্তবয়স্ক পাখির পিঠ সোনালী-হলুদ এবং সাদা দেহতলে কালো খাড়া দাগ; ফুটকিহীন কালো ঘাড়; পিঠ সোনালী-হলুদ; কোমর উজ্জ্বল লাল; লেজ কালো; গলার মাঝখানটা বাদামি-পীতাভএর চোখ ও ঘাড়ের মধ্যে ফ্যাকাসে-বাদামি মধ্যভাগসহ বিভক্ত অস্পষ্ট কালো ডোরা রয়েছে; চোখের পিছন থেকে প্রশস্ত সাদা ভ্রু পিছনের দিকে চলে গেছে; কালো চোখের ডোরা চোখ থেকে ঘাড়, সাদা বর্ণ ঠোঁটের গোড়া থেকে ঘাড়ের তল পর্যন্ত বিস্তৃত; চোখ লালচে-বাদামি, ঠোঁট কালচে এবং পা ও পায়ের পাতা ফ্যাকাসেছেলেমেয়েপাখির চেহারার পার্থক্য শুধু তাদের মাথার চাঁদি ও চূড়ায়; ছেলেপাখির চাঁদি ও চূড়া জ্জ্বল লাল, আর মেয়েপাখির কপাল ও চাঁদির সামনের ভাগ বাদামি-কালো এবং চাঁদি ও চূড়া লম্বা সাদা ডোরাসহ কালো২টি উপ-প্রজাতির মধ্যে D. s. shorii বাংলাদেশে পাওয়া যায়
স্বভাব: হিমালয়ী কাঠঠোকরা অর্ধ-চিরসবুজ ও প্রশস্ত পাতা ওয়ালা পত্রঝরা বনে বিচরণ করে; সাধারণত একা, জোড়ায় বা পারিবারিক দলে দেখা যায়মাটিতে লাফিয়ে বা গাছের কাণ্ডের চারদিকে ঘুরে খাবার সংগ্রহ করে; খাদ্যতালিকায় রয়েছে পিঁপড়া ও নানা জাতের পোকাখাওয়ার সময় এরা বারংবার ডাকে: ক্লাক ক্লাক ক্লাক..মার্চ-মে মাসের প্রজনন ঋতুতে ছেলেপাখি মেয়েপাখির পাশাপাশি ওড়ে চলে এবং বার বার ডাকে: কি-কি-কি-কি ...; তারপর গাছের কাণ্ডে বা বড় ডালে গর্ত খুঁড়ে বাসা বানিয়ে ডিম পাড়েডিম সাদা, সংখ্যায় টি; মাপ ২.৯×২.০ সেমিছেলে মেয়ে উভয়ই বাসার সব কাজ করে
বিস্তৃতি: হিমালয়ী কাঠঠোকরা বাংলাদেশের বিরল আবাসিক পাখি; ঢাকা ও সিলেট বিভাগের বনে বিচরণ করেভারত, নেপাল, ভুটান ও হিমালয় থেকে মিয়ানমার পর্যন্ত দক্ষিণ এশিয়ায় এর বৈশ্বিক বিস্তৃতি রয়েছে
অবস্থা: হিমালয়ী কাঠঠোকরা বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশে অপ্রতুল-তথ্য শ্রেণিতে রয়েছেবাংলাদেশ বন্যপ্রাণী আইনে হিমালয়ী কাঠঠোকরাকে সংরক্ষিত ঘোষণা করা হয় নি
বিবিধ: হিমালয়ী কাঠঠোকরার বৈজ্ঞানিক নামের অর্থ শোরের বলীয়ান (গ্রীক : deinos = শক্তিমান, opos = চেহারা; shorii = ফ্রেডেরিক জন শোরের সম্মানে, ১৭৯৯-১৮৩৭)
বাংলাদেশের উদ্ভিদ প্রাণী জ্ঞানকোষে এই নিবন্ধটির লেখক ইনাম আল হক ও এম. কামরুজ্জামান। 


আরো পড়ুন:

. বাংলাদেশের পাখির তালিকা  

. বাংলাদেশের স্তন্যপায়ী প্রাণীর তালিকা

৩. বাংলাদেশের ঔষধি উদ্ভিদের একটি বিস্তারিত পাঠ

৪. বাংলাদেশের ফলবৈচিত্র্যের একটি বিস্তারিত পাঠ

No comments:

Post a Comment