Saturday, December 21, 2013

বাংলা কাঠঠোকরা বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি



বাংলা কাঠঠোকরা, ফটো: ইংরেজি উইকিপিডিয়া থেকে
দ্বিপদ নাম: Dinopium benghalense
সমনাম: Picus benghalensis Linnaeus, 1758
বাংলা নাম: বাংলা কাঠঠোকরা
ইংরেজি নাম: Lesser Goldenback (Black-rumped flameback).

জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্যKingdom: Animalia
বিভাগ/Phylum: Chordata
শ্রেণী/Class: Aves
পরিবার/Family: Picidae
গণ/Genus: Dinopium, Rafinesque, 1814;
প্রজাতি/Species: Dinopium benghalense (Linnaeus, 1758)
ভূমিকাঃ বাংলাদেশের পাখির তালিকাDinopium গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ৩টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে ৪টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতি তিনটি হচ্ছে, ১. বাংলা কাঠঠোকরা,. পাতি কাঠঠোকরা ও ৩. হিমালয়ী কাঠঠোকরা। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে বাংলা কাঠঠোকরা।
বর্ণনা: বাংলা কাঠঠোকরা বাংলাদেশের অতিচেনা কাঠঠোকরা (দৈর্ঘ্য ২৯ সেমি, ওজন ১০০ গ্রাম, ডানা ১৪.২ সেমি, ঠোঁট ৩.৭ সেমি, পা ২.৫ সেমি, লেজ ৯ সেমি) প্রাপ্তবয়স্ক পাখির পিঠ সোনালী-হলুদ; দেহতলে কালো আঁইশের দাগ; ওড়ার পালক ও লেজ কালো; থুতনিতে কালো ডোরা; সাদা ঘাড়ের পাশে কালো দাগ; বুকে মোটা কালো আঁইশের দাগ; চোখে কালো ডোরা; ডানার গোড়ার ও মধ্য-পালক ঢাকনিতে সাদা বা ফ্যাকাসে ফুটকি এবং পিঠ ও ডানার অবশেষ সোনালীসবুজ গোলকসহ এর চোখ লালচে-বাদামি; পা ও পায়ের পাতা ধূসর সবুজ এবং ঠোঁট শিঙ-রঙ ও কালোর মিশ্রণ ছেলে মেয়েপাখির চেহারায় পার্থক্য তাদের চাঁদিও ঝুটির রঙে: ছেলেপাখির চাঁদি ও ঝুটি উজ্জ্বল লাল এবং মেয়েপাখির সাদা বিন্দুসহ চাঁদির সামনের অংশ কালো ও পিছনের ঝুটি লালতরুণ পাখির অনুজ্জ্বল দেহ ও চাঁদির সামনের ভাগের সাদা বিন্দু ছাড়া দেখতে মেয়েপাখির মত৪টি উপ-প্রজাতির মধ্যে D. b. benghalense বাংলাদেশে আছে
স্বভাব: বাংলা কাঠঠোকরা বন, বাগান ও লোকালয়ে সর্বত্র বিচরণ করে; একাকী, জোড়ায় বা পারিবারিক দলে দেখা যায়গাছের কাণ্ড ও ডালে হাতুড়ির মত আঘাত করে অবা মাটিতে ঝরাপাতা উল্টে এরা খাবার সংগ্রহ করে; খাদ্যতালিকায় রয়েছে পিঁপড়া, শুয়ো পোকা, বিছা, মাকড়সা, অন্যান্য পোকামাকড় এবং ফুল ও ফলের রসশক্ত পা ও অনমনীয় লেজে ভর দিয়ে ছোট ছোট লাফ মেরে এরা গাছের কাণ্ড বেয়ে উপরের ওঠে; ওড়ার সময় উচ্চ স্বরে ডাকে: কিয়ি কিয়ি কিয়ি-কিয়ি-কিয়িকিয়িইরররর-র-র-র..ফেব্রুয়ারি-জুলাই মাসের প্রজনন ঋতুতে গাছের কাণ্ডে গর্ত খুড়ে বাসা বেঁধে এরা ডিম পাড়েডিমগুলো সাদা, সংখ্যায় ৩টি, মাপ ২.৮×২.০ সেমিছেলে মেয়েপাখির উভয়ই বাসার সব কাজ করেবাসায় হামলা হলে ছানারা সাপের মত হিস হিস শব্দ করে
বিস্তৃতি: বাংলা কাঠঠোকরা বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি; সব বিভাগের সব বনে ও লোকালয়ে রয়েছেপাকিস্তান, ভারত ও শ্রীলংকাসহ দক্ষিণ এশিয়ায় এর বৈশ্বিক বিস্তৃতি রয়েছে
অবস্থা: বাংলা কাঠঠোকরা বিশ্বে ও বাংলাদেশে বিপদমুক্ত বলে বিবেচিতবাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে এ প্রজাতি সংরক্ষিত
বিবিধ: বাংলা কাঠঠোকরার বৈজ্ঞানিক নামের অর্থ বাংলার বলীয়ান (গ্রীক : deinos = শক্তিমান, opos = চেহারা; bengalense = বাংলার)পাখিটি বাংলাদেশে শুধু কাঠঠোকরানামে পরিচিত
বাংলাদেশের উদ্ভিদ প্রাণী জ্ঞানকোষে এই নিবন্ধটির লেখক ইনাম আল হক ও এম. কামরুজ্জামান  


আরো পড়ুন:

. বাংলাদেশের পাখির তালিকা  

. বাংলাদেশের স্তন্যপায়ী প্রাণীর তালিকা

৩. বাংলাদেশের ঔষধি উদ্ভিদের একটি বিস্তারিত পাঠ

৪. বাংলাদেশের ফলবৈচিত্র্যের একটি বিস্তারিত পাঠ

No comments:

Post a Comment