Friday, February 28, 2014

কালামাথা কাবাসি বাংলাদেশের দুর্লভ আবাসিক পাখি



কালামাথা কাবাসি, ছেলে ফটোঃ রেজাউল হাফিজ রাহী
দ্বিপদ নাম/Scientific Name: Coracina melanoptera (Ruppell, 1839)
সমনাম: Ceblepyris melanoptera Ruppell, 1839
বাংলা নাম: কালামাথা কাবাসি
ইংরেজি নাম/Common Name: Black-headed Cuckooshrike.

জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্যKingdom: Animalia
বিভাগ/Phylum: Chordata
শ্রেণী/Class: Aves
পরিবার/Family: Corvidae
গণ/Genus: Coracina, Vieillot, 1816; 
প্রজাতি/Species: Coracina melanoptera (Ruppell, 1839)
ভূমিকাঃ বাংলাদেশের পাখির তালিকাCoracina গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ৩টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে রয়েছে মোট ৪৮টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতি ৩টি হচ্ছে, ১. বড় কাবাসি, ২. কালামাথা কাবাসি ও ৩. কালাপাখ কাবাসি। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে কালামাথা কাবাসি।
বর্ণনাঃ কালামাথা কাবাসি বাদামি চোখ ও কালচে লেজের পোকা শিকারি পাখি। এদের দৈর্ঘ্য ১৯ সেমি, ওজন ৩০ গ্রাম, ডানা ১০ সেমি, ঠোঁট ২ সেমি, লেজ ৭.৫ সেমি।
স্বভাবঃ কালামাথা কাবাসি বনপ্রান্ত, প্রশস্ত পাতার বন ও কুঞ্জবনে বিচরণ করে।
বিস্তৃতিঃ ২০০৯ সালে এশিয়াটিক সোসাইটি কর্তৃক প্রকাশিত বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষে কালামাথা কাবাসিকে বাংলাদেশের দুর্লভ আবাসিক পাখি হিসেবে বলা হয়েছে।
অবস্থা: কালামাথা কাবাসি বিশ্বে ও বাংলাদেশে বিপদমুক্ত বলে বিবেচিত। বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে এ-প্রজাতি সংরক্ষিত।
 

আরো পড়ুন:

. বাংলাদেশের পাখির তালিকা  

. বাংলাদেশের স্তন্যপায়ী প্রাণীর তালিকা

৩. বাংলাদেশের ঔষধি উদ্ভিদের একটি বিস্তারিত পাঠ

৪. বাংলাদেশের ফলবৈচিত্র্যের একটি বিস্তারিত পাঠ

Tuesday, February 25, 2014

কাটুয়া চিল বাংলাদেশের দুর্লভ আবাসিক পাখি



কাটুয়া চিল, ফটোঃ রেজাউল হাফিজ রাহী
দ্বিপদ নাম/Scientific Name: Elanus caeruleus (Desfontaines, 1789)
সমনাম: Falco caeruleus Desfontaines, 1789
বাংলা নাম: কাটুয়া চিল, সাদা চিল
ইংরেজি নাম/Common Name: Black-winged Kite (Black shouldered Kite).

জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্যKingdom: Animalia
বিভাগ/Phylum: Chordata
শ্রেণী/Class: Aves
পরিবার/Family: Accipitridae
গণ/Genus: Falco, Savigny, 1809; 
প্রজাতি/Species: Elanus caeruleus (Desfontaines, 1789)
ভূমিকাঃ বাংলাদেশের পাখির তালিকাElanus গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ১টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে রয়েছে মোট ৪টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত ও আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে কাটুয়া চিল।
বর্ণনাঃ কাটুয়া চিল কাঁধে বড় পট্টি ও সুচালো ডানার ছোট শিকারি পাখি। এদের দৈর্ঘ্য ৩৩ সেমি, ওজন ১৬৪ গ্রাম, ডানা ২৭ সেমি, ঠোঁট ২.৩ সেমি, পা ৩.৬ সেমি, লেজ ১২.৩ সেমি।
স্বভাবঃ কাটুয়া চিল আবাদি জমি দিয়ে বিচ্ছিন্ন তৃণভূমি কিংবা ছড়িয়ে থাকা গাছ, নিচুভুমি, শুকনো ক্ষুদ্র ঝোপ অ মরুভূমির ক্ষুদ্র ঝোপে বিচরণ করে।
বিস্তৃতিঃ ২০০৯ সালে এশিয়াটিক সোসাইটি কর্তৃক প্রকাশিত বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষে কাটুয়া চিলকে বাংলাদেশের দুর্লভ আবাসিক পাখি হিসেবে বলা হয়েছে।
অবস্থা: কাটুয়া চিল বিশ্বে ও বাংলাদেশে বিপদমুক্ত বলে বিবেচিত। বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে এ-প্রজাতি সংরক্ষিত। 
আরো পড়ুন:

. বাংলাদেশের পাখির তালিকা  

. বাংলাদেশের স্তন্যপায়ী প্রাণীর তালিকা

৩. বাংলাদেশের ঔষধি উদ্ভিদের একটি বিস্তারিত পাঠ

৪. বাংলাদেশের ফলবৈচিত্র্যের একটি বিস্তারিত পাঠ