Monday, June 02, 2014

ধলাগলা মাছরাঙা বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি



ধলাগলা মাছরাঙা, ফটো: ইংরেজি উইকিপিডিয়া থেকে
দ্বিপদ নাম: Halcyon smyrnensis
সমনাম: Alcedo smyrnensis Linnaeus, 1766
বাংলা নাম: ধলাগলা মাছরাঙা,
ইংরেজি নাম: White-throated Kingfisher.

জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্য Kingdom: Animalia
বিভাগ/Phylum: Chordata
শ্রেণী/Class: Aves
পরিবার/Family: Dalcelonidae
গণ/Genus: Halcyon, Swainson, 1821;  
প্রজাতি/Species: Halcyon smyrnensis (Linnaeus, 1758)
ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকাHalcyon গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ৩টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে ১১টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতি তিনটি হচ্ছে ১. লাল মাছরাঙা, ২. কালাটুপি মাছরাঙা ও ৩. ধলাগলা মাছরাঙা। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে ধলাগলা মাছরাঙা
বর্ণনা: ধলাগলা মাছরাঙা সাদা গলার বিশ্বজনীন মাছরাঙা (দৈর্ঘ্য ২৮ সেমি, ডানা ১১.৮ সেমি, ঠোঁট ৬ সেমি, পা ১.৬ সেমি, লেজ ৭.৫ সেমি)। পূর্ণবয়স্ক পাখির পিঠ নীলকান্তমণি-নীল ও দেহতল চকলেট-বাদামি। মাথা ও ঘাড় চকলেট-বাদামি এবং পাছা ও লেজসহ পিঠ উজ্জ্বল নীলকান্তমণি-নীল। থুতনি, গলা ও বুকের মাঝামাঝি পর্যন্ত বিস্তৃত উজ্জ্বল সাদা রঙ সামনে স্পষ্ট জামার গঠন লাভ করেছে। ওড়ার সময় কালো প্রাথমিক পালকের গোড়ার সাদা পট্টি নজরে আসে। ঠোঁট লাল ও মুখ কমলা রঙের। চোখ বাদামি। উজ্জ্বল পিছনের পা ও পদতলসহ পা ও পায়ের পাতা প্রবাল-লাল। ছেলে মেয়েপাখির চেহারায় পার্থক্য নেই। বাদামি ঠোঁট ও কালচে ঢেউ খেলানো বুকসহ অনুজ্জ্বল গায়ের রঙ ছাড়া অপ্রাপ্তবয়স্ক ও পূর্ণবয়স্ক পাখির চেহারার মধ্যে পার্থক্য নেই। ৪টি উপ-প্রজাতির মধ্যে H. s. fusca বাংলাদেশে রয়েছে (২টি উপ-প্রজাতি অবিচ্ছেদ্য বলে কয়েকজন লেখক মত দিয়েছেন)।
স্বভাব: ধলাগলা মাছরাঙা বনের প্রান্তদেশ, আবাদি জমি, বাগান, শুষ্ক পাতাঝরা বন, জলাধার, নদী, খাল, ডোবা, গ্রামের পুষ্করিণী, নর্দমা, উপকূল ও প্যারাবনে বিচরণ করে; সাধারণত একা বা আলাদা জোড়ায় দেখা যায়। বেড়া, বৈদ্যুতিক তার বা গাছের ডালে বসে মাটিতে বা পানিতে শিকার পর্যবেক্ষণ করে। খাবারের বেশীর ভাগই পোকামাকড়: ফড়িং, ঝিঁঝিঁপোকা, ম্যানট্সি, গুবরে পোকা, পিঁপড়া, ডানাওয়ালা উই, পঙ্গপাল ও অন্য ধরনের ফড়িং। ওড়ার সময় উচ্চ সুরে ডাকে: কে-কে-কেক..; এবং শিস্ মেরে গান গায়: কিলিলিলি...। মার্চ-জুন প্রজনন ঋতু। খাড়া পাড়ে গর্ত খুঁড়ে বাসা বানায় ও মেয়েপাখি ৪-৭টি ডিম পাড়ে। ডিম সাদা গোল ডিম্বাকার, মাপ ২.৯ × ২.৬ সেমি।
বিস্তৃতি: ধলাগলা মাছরাঙা বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি; সব বিভাগের সকল জলাশয় ও পল্লী এলাকায় বিচরণ করে। তুর্কি ও মধ্যপ্রাচ্য থেকে পাকিস্তান, ভারত, নেপাল, ভুটান, শ্রীলংকা থেকে মিয়ানমার, চীন, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও ফিলিপাইনে এর বৈশ্বিক বিস্তৃতি রয়েছে।
অবস্থা: ধলাগলা মাছরাঙা বিশ্বে ও বাংলাদেশে বিপদমুক্ত বলে বিবেচিত। বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে এ প্রজাতি সংরক্ষিত।
বিবিধ: ধলাগলা মাছরাঙার বৈজ্ঞানিক নামের অর্থ স্মাইর্নার মাছরাঙা (গ্রীক: halkuon = মাছরাঙার সঙ্গে সম্পর্কিত পৌরাণিক পাখি; smyrnensis =স্মাইর্না শহর, তুর্কি)।
বাংলাদেশ উদ্ভিদ প্রাণী জ্ঞানকোষে এই নিবন্ধটির লেখক এম. আনোয়ারুল ইসলাম ও এম. কামরুজ্জামান

আরো পড়ুন:

. বাংলাদেশের পাখির তালিকা 

. বাংলাদেশের স্তন্যপায়ী প্রাণীর তালিকা

৩. বাংলাদেশের ঔষধি উদ্ভিদের একটি বিস্তারিত পাঠ

No comments:

Post a Comment

জনপ্রিয় দশটি লেখা, গত সাত দিনের

Recommended