Thursday, July 31, 2014

কেও বাংলাদেশের কন্দজাতীয় ঔষধি ফুল গাছ



কেও বা কেওমূল, ফটো: মাজহারুল ইসলাম
বৈজ্ঞানিক নাম: Cheilocostus speciosus
সমনাম: Banksea speciosa, Hellenia speciosa
বাংলা নাম: কেও, কেওমূল, কুস্তা, বন্দুই, শটি,
হিন্দি নাম: কেওকন্ড, কুষ্ট
সংস্কৃত নাম: কুষ্ঠা
ইংরেজি নাম: crêpe ginger

জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্য: Plantae - Plants
অবিন্যসিত: Angiosperms
অবিন্যসিত: Monocots
অবিন্যসিত: Commelinids
বর্গ: Zingiberales
পরিবার: Costaceae
গণ: Cheilocostus
প্রজাতি: Cheilocostus speciosus C.Specht
পরিচিতিঃ: কেও বহুবর্ষজীবী গুল্ম জাতীয় উদ্ভিদ। সাধারণত ছায়াযুক্ত স্থানে ঘন ঝোপ-ঝাড়ের ভেতরে স্যাঁতসেঁতে জায়গায় জন্মায়। গাছ ঝোপালো শিকড় থেকেই অনেক ডালপালা বেরিয়ে ঘন ঝোপ সৃষ্টি করে। কেঁউ ঝোপ - ফুট পর্যন্ত লম্বা হতে পারে কাণ্ডের রং সবুজ ও শক্ত। কাণ্ডের শীর্ষপ্রান্তে -২টা ডাল বের হয় কাণ্ড -. ইঞ্চি মোটা হয়। কেঁউ গাছের পাতার রং সবুজ। উপবৃক্তাকার, একপক্ষল পাতার বোঁটা ঠিক আর দশটা উদ্ভিদের বোঁটার মত নয়। বরং ফিতার মতো। ফিতাকৃতির বোঁটা কাণ্ডের গায়ে শাড়ির মত পেঁচিয়ে থাকে। পাতা মসৃণ। -১০ ইঞ্চি পর্যন্ত লম্বা হতে পারে। মাঝ বরাবর পাতার প্রস্থ - ইঞ্চি। পাতার সামান্য পুরু, নরম। পাতার নিচের দিকটা পশমের মতো লোমে ঢাকা। কেওয়ের ফুল খুব সুন্দর। তবে যেটাকে ফুল বলছি সেটা ঠিক ফুল নয়, পুষ্ণমঞ্জরি। পুষ্পমঞ্জিরি গুচ্ছ আকারে থাকে এবং এর রং লাল। মঞ্জরিতেও ত্রিকোণাকার পাতলা পাপড়ি আছে। প্রতিটা ত্রিকোণের ভেতর থেকে একটা করে মাইকাকৃতির সাদা ফুল ফোটে। ফুলের তেমন গন্ধ নেই। মৌসুমি ফুল, বর্ষার শেষ দিকে ফুল ফোটে। শ্বেতশুভ্র কেও ফুলের ওপর প্রজাপতি মৌমাছির ওড়াউড়িও চোখে পড়ার মতো। কন্দমূল জাতীয় উদ্ভিদ, তাই মূল থেকেই এর বংশবিস্তার ঘটে।
বিস্তৃতি: সারাদেশেই জন্মায়। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চল, বিশেষ করে মালয়েশিয়া ইন্দোনেশিয়ায় কেও বেশি দেখা যায়। ভারতে ঔষধি বৃক্ষ হিসেবে এর ব্যাপক ব্যবহার।
ঔষধি গুনাগুণ: জ্বর, র‍্যাশ, এজমা, ব্রংকাইটিসে কাজে লাগে।

আরো পড়ুন:

. বাংলাদেশের ঔষধি উদ্ভিদের একটি বিস্তারিত পাঠ

. বাংলাদেশের পাখির তালিকা 

৪. বাংলাদেশের স্তন্যপায়ী প্রাণীর তালিকা

পাতি চড়ুই বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি



পাতি চড়ুই, ছেলে, ফটো: ইংরেজি উইকিপিডিয়া থেকে
দ্বিপদ নাম/Scientific Name: Passer domesticus
সমনাম: নেই
বাংলা নাম: পাতি চড়ুই,

ইংরেজি নাম/Common Name: House Sparrow.


জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্যKingdom: Animalia
বিভাগ/Phylum: Chordata
শ্রেণী/Class: Aves
পরিবার/Family: Passeridae
গণ/Genus: Passer, Brison, 1760;
প্রজাতি/Species: Passer domesticus (Linnaeus, 1758)
ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকাPasser গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতেও রয়েছে ২৩টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতি দুটি হচ্ছে ১. পাতি চড়ুই ও ২. ইউরেশীয় গাছচড়ুই। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে পাতি চড়ুই
বর্ণনাঃ পাতি চড়ুই মোটা ঠোঁটধারী বাদামি গায়ক পাখি। সাধারণত দৈর্ঘ্যে মাত্র ১সেমি (৬.৩ ইঞ্চি) ও ওজনে ২৪ গ্রাম, ডানা ৭.৫ সেমি, ঠোঁট ১.৪ সেমি, পা ২ সেমি ও লেজ ৫.৪ সেমি হয়। মেয়ে ও ছেলেপাখির চেহারায় পার্থক্য আছে।
স্বভাব: পাতি চড়ুই জনবসতির মধ্যে থাকতে ভালোবাসে তাই এদের ইংরাজি নাম House Sparrow অর্থাৎ "গৃহস্থালির চড়াই"। খড়কুটো, শুকনো ঘাস পাতা দিয়ে কড়িকাঠে, কার্নিশে বাসা বাঁধে। সমস্ত দিন এরা লাফিয়ে বেড়িয়ে মাটি থেকে পোকামাকড় শস্য খুঁটে খায়।
বিস্তৃতি: পাতি চড়ুই বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি। সব বিভাগের লোকালয়ে পাওয়া যায়। ইউরোপ ও এশিয়া থেকে ছড়িয়ে পড়ে এখন এন্টার্কটিকা ছাড়া পৃথিবীর সব মহাদেশে এর বৈশ্বিক বিস্তৃতি রয়েছে। পৃথিবীতে বন্য পাখিদের মধ্যে পাতি চড়ুইই সবচেয়ে বেশি এলাকা জুড়ে বিস্তৃত।
অবস্থা: ২০০৯ সালে এশিয়াটিক সোসাইটি কর্তৃক প্রকাশিত বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষে এটিকে বাংলাদেশে ও বিশ্বে বিপদমুক্ত বলে বর্ণনা করা হয়েছে। বাংলাদেশের ১৯৭৪ সালের বন্যপ্রাণী আইনে একে সংরক্ষিত ঘোষণা করা হয়নি।

আরো পড়ুন:

Recommended