Tuesday, November 18, 2014

অনুপ সাদির সমাজতন্ত্র বিষয়ক প্রবন্ধ




সমাজতন্ত্র, প্রলেতারিয়েতের মুক্তির মতবাদ

সমাজতন্ত্র শুধু সমাজবিজ্ঞান, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বা দর্শনের আলোচনার বিষয় নয়, ইদানিংকালে সমাজতন্ত্র সর্ম্পকিত আলোচনা আমাদের অনেকের দৈনন্দিন জীবনের অংশ। এরকম একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে পুস্তকের অভাব থেকেই গেছে। সমাজতন্ত্র সম্পর্কে বাংলা ভাষার পাঠকদের প্রাথমিক ধারণা দেবার উদ্দেশ্যে এই বইটি লেখা হয়েছে। পাঠকদের ধারণা সামান্য শাণিত হলেই আমার শ্রম সার্থক হবে। উল্লেখ করা যেতে পারে যে এই বইয়ের প্রায় সব কথাই নানান মার্কসবাদী, লেনিনবাদী, মাওবাদী লেখকদের বই থেকে নেওয়া হয়েছে। সমাজতন্ত্রের সাথে সম্পর্কিত আরো কতিপয় বিষয় সর্ম্পকে লেখা প্রয়োজন ছিলো। সেটি নানা কারণে সম্ভব হলো না।


Sunday, November 16, 2014

লেনিনের গ্রন্থ এপ্রিল থিসিস সম্পর্কে আলোচনা




এপ্রিল থিসিস গ্রন্থের প্রচ্ছদ

এপ্রিল থিসিস (ইংরেজি: April Theses, রুশ: апрельские тезисы) ছিল বলশেভিক নেতা ভ্লাদিমির লেনিন প্রদত্ত দিকনির্দেশক প্রতিপাদ্য। ১৯১৭ সালের ফেব্রুয়ারি বিপ্লবের বিজয়ের পর এক বিশেষ পরিস্থিতিতে সুইজারল্যান্ডে দীর্ঘ নির্বাসন জীবনের শেষে এপ্রিলের ৩ তারিখ রাত্রে লেনিন রাশিয়ায় ফিরে আসেন। পেত্রোগ্রাদে পৌঁছে তিনি তাৎক্ষনিকভাবেই অপেক্ষমাণ শ্রমিক ও সৈনিক জনগণের সামনে এক ছোট্ট কিন্তু বিখ্যাত ভাষণ দেন; উক্ত ভাষণে তিনি সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবে বিজয় অর্জনের আহ্বান জানান। সেটিই এপ্রিল থিসিস নামে পরিচিত। পরদিন ৪ঠা এপ্রিল প্রথমে বলশেভিকদের এক বৈঠকে এবং পরে বলশেভিক ও মেনশেভিকদের এক যৌথ সভায় যুদ্ধ ও বিপ্লব সম্পর্কে তিনি এক রিপোর্ট প্রদান করেন যা তার বক্তৃতাকে পূর্ণাঙ্গ রূপ প্রদান করে।[১]
এপ্রিল থিসিসে লেনিন পার্টি ও প্রলেতারিয়েত শ্রেণির সামনে বুর্জোয়া গণতান্ত্রিক বিপ্লব থেকে সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবে উত্তরণের জন্য এক মূর্ত ও তত্ত্বগতভাবে বিস্তৃত সংগ্রামের পরিকল্পনা হাজির করেন। সেই থিসিসে তিনি প্রলেতারিয়েতের একনায়কত্বের সর্বশ্রেষ্ঠ রাজনৈতিক রূপ হিসেবে সোভিয়েত প্রজাতন্ত্র প্রতিষ্ঠার আওয়াজ উপস্থাপন করেন। তিনি তার এপ্রিল থিসিসের বক্তব্যকে আরও বিশদভাবে ব্যাখ্যা করেন ‘রণকৌশল সম্পর্কে পত্রাবলি’, ‘আমাদের বিপ্লবে প্রলেতারিয়েত শ্রেণির কর্তব্য’ এবং রাশিয়ার রাজনৈতিক দলসমূহ ও প্রলেতারিয়েত শ্রেণির কর্তব্য’ শীর্ষক নিবন্ধাবলিতে।[১] এপ্রিল থিসিসেই লেনিন সর্বপ্রথম পার্টির নাম পরিবর্তনের প্রস্তাব করেন। এ প্রসঙ্গে পাদটীকায় তিনি বলেন,
“যে সমাজ গণতন্ত্রের সরকারি নেতারা দুনিয়ার সর্বত্র সমাজতন্ত্রের প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা করেছে এবং বুর্জোয়াদের স্বপক্ষে দলত্যাগ করেছে, ... সেই সমাজ গণতন্ত্রের বদলে আমাদের এখন অবশ্যই নিজেদের অভিহিত করতে হবে কমিউনিস্ট পার্টি বলে”।[২]   

ন. লেনিন স্বাক্ষরিত এবং ১৯১৭-এর ৭ এপ্রিল প্রাভদার ২৬ নং সংখ্যায় প্রকাশিত বর্তমান বিপ্লবে প্রলেতারিয়েতের কাজপ্রবন্ধে এই বিখ্যাত এপ্রিল থিসিসপ্রকাশিত হয়। এটি পেত্রগ্রাদ পথে লেনিন সম্ভবত ট্রেনে লেখেন। ১৯১৭-এর ১৭ এপ্রিল (এপ্রিল রাশিয়ান পুরনো দিনপঞ্জি অনুসারে) তাউরিদা প্রাসাদে অনুষ্ঠিত দুটি সভায়, বলশেভিকদের একটি সভায় এবং শ্রমিক ও সৈনিক প্রতিনিধিদের সোভিয়েতগুলির সর্ব-রাশিয়া সম্মেলনের বলশেভিক ও মেনশেভিক প্রতিনিধিদের একটি যুক্ত অধিবেশনে, তিনি থিসিসগুলি পড়েন। থিসিসসমূহে লেনিন বলেন,
১. সাময়িক সরকার পুঁজিবাদী চরিত্রের কারণে বুর্জোয়া সরকার এবং সেই সরকারকে সামান্যতম সমর্থন করা চলবে। সরকারকে সামান্যতম ছাড় দেওয়া চলবে না। বরং সাময়িক সরকারের পরদেশ দখল সংক্রান্ত প্রতিশ্রুতি ডাহা মিথ্যা তা স্পষ্ট করে দিতে হবে। তিনি প্রথম বিশ্বযুদ্ধকে পররাজ্যগ্রাসী সাম্রাজ্যবাদ হিসেবে অভিযুক্ত করেন।
২. রাশিয়ায় বর্তমান পরিস্থিতির বিশেষত্ব হলো এই যে, প্রলেতারিয়েতের শ্রেণীচেতনা ও সংগঠন যথেষ্ঠ শক্তিশালী না থাকার কারণে বিপ্লবের প্রথম পর্বে ক্ষমতা তুলে দেওয়া হয়েছে বুর্জোয়াদের হাতে, এই পর্যায় অতিক্রম করে দেশ এখন এগিয়ে যাচ্ছে বিপ্লবের দ্বিতীয় পর্বে, এই পর্বে ক্ষমতা অবশ্যই প্রলেতারিয়েত এবং কৃষকদের সবচেয়ে গরিব অংশগুলোর হাতে হস্তান্তরিত হবে।
৩. এই বাস্তব অবস্থাটা উপলব্ধি করতে হবে যে, শ্রমিক প্রতিনিধি সোভিয়েতগুলির বেশির ভাগের মধ্যে আমাদের পার্টি সংখ্যালঘু, এখন অবধি ক্ষুদ্র সংখ্যালঘু, আর আমাদের বিরুদ্ধে রয়েছে একটা জোট যেটার মধ্যে আছে সমস্ত পেটি-বুর্জোয়া সুবিধাবাদীরা, জনপ্রিয় সমাজতন্ত্রী এবং সোশ্যালিস্ট-রেভলিউশনারি থেকে শুরু করে অরগানাইজিং কমিটি (চখেইজে, সেরেতেলি আরও সব), স্তেকলোভ, আরও অনেকে, যারা বুর্জোয়াদের প্রভাবের কাছে বশ্যতাস্বীকার করেছে এবং এই প্রভাবকে প্রলেতারিয়েতের মধ্যে ছড়িয়ে দিয়েছে।
জনগণকে এটা উপলব্ধি করাতে হবে যে, বর্তমান মুহুর্তে শ্রমিক প্রতিনিধি সোভিয়েতগুলিই হচ্ছে বিপ্লবী সরকারের একমাত্র সম্ভাব্য রূপ, সুতারাং যতদিন এই সরকার বুর্জোয়াদের প্রভাবের কাছে বশ্যতাস্বীকার করছে ততদিন আমাদের কাজ হলো ধৈর্যসহকারে অবিচলিত চিত্তে এবং অধ্যবসায়ের সাথে তাদের কর্মকৌশলের ভ্রান্তিগুলোর ব্যাখ্যা তুলে ধরা, যে ব্যাখ্যা জণগণের দৈনন্দিন জীবনের বাস্তব প্রয়োজনগুলোর জন্য বিশেষভাবে উপযোগৗ।
৪. শ্রমিক প্রতিনিধি সোভিয়েতগুলি থেকে পার্লামেন্টারি প্রজাতন্ত্রে ফিরে যাওয়া হবে একটা পশ্চাৎমুখী পদক্ষেপ-আমরা চাই সারা দেশে তৃণমুল থেকে উপর পর্যন্ত শ্রমিক, ক্ষেতমজুর আর কৃষক প্রতিনিধি সোভিয়েতগুলির প্রজাতন্ত্র।
৫. পুলিশ, সেনাবাহিনী এবং আমলাতন্ত্রের বিলোপসাধন। সকল কর্মকর্তা নির্বাচিত হওয়া চাই, তারা সবাই হবেন যেকোন সময় অপসারণযোগ্য, তাদের কারও বেতন একজন দক্ষ শ্রমিকের গড় মজুরি অতিক্রম করতে পারবে না।
৬. ভূমিবিষয়ক কর্মসূচীতে গুরুত্বের ভরকেন্দ্রটা ক্ষেতমজুর প্রতিনিধি সোভিয়েতের হাতে তুলে দিতে হবে। জমিদারদের সকল ভূসম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হবে
দেশের সমস্ত ভূমির রাষ্ট্রীয়করণ সম্পন্ন করতে হবে, ভূমির বিলিব্যবস্থা স্থানীয় ক্ষেতমজুর এবং কৃষক সোভিয়েতগুলির হাতে হস্তান্তর করতে হবে। পৃথক পৃথক গরিব কৃষক প্রতিনিধিদের সোভিয়েত গুলির নিয়ন্ত্রণাধীনে এবং সরকারী খরচে প্রত্যেকটা বৃহৎ ভূসম্পত্তিতে একটা আদর্শ খামার স্থাপন করতে হবে
৭. অবিলম্বে দেশের সকল নিয়ন্ত্রণ থাকবে শ্রমিক প্রতিনিধি সোভিয়েতের হাতে।
৮. দেশের সকল ব্যাংকের একত্রীকরণ সন্নিহিত করা এবং সেগুলোর সমন্বয়ে একটি একক জাতীয় ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করা হবে। ব্যাংকটির নিয়ন্ত্রণ থাকবে সোভিয়েত শ্রমিকদের ডেপুটিদের কাছে।
৯. পার্টির করণীয়‍ হিসেবে বলেন, (ক) অবিলম্বে পার্টি কংগ্রেস ডাকা; (খ) পার্টি কর্মসূচীতে রদ বদল আনা, প্রথমত সম্রাজ্যবাদ এবং সম্রাজ্যবাদী যুদ্ধ সংক্রান্ত প্রশ্নে; দ্বিতীয়ত কমিউন রাষ্ট্রপ্রতিষ্ঠার প্রশ্নে, তৃতীয়ত সেকেলে সর্বনিম্ন কর্মসূচী সংশোধন প্রশ্নে এবং চতুর্থত, পার্টির নাম পরিবর্তন প্রসঙ্গে।

৯. একটা বিপ্লবী আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠা করা হবে যা পরে Comintern বা তৃতীয় আন্তর্জাতিক হিসেবে ১৯১৯ সালে গঠিত হয়।[৩]

তথ্যসূত্র:
১. ভি. আই. লেনিন; সর্বহারা বিপ্লব ও দলদ্রোহী কাউৎস্কী; সেরাজুল আনোয়ার অনূদিত, গণপ্রকাশন, ঢাকা; ডিসেম্বর, ১৯৯০
২. ভি. আই. লেনিন; সম্পূর্ণ রচনাবলী, ২৪ খণ্ড, পৃষ্ঠা ২৪
৩. ভি. আই. লেনিন; এপ্রিল থিসিস, প্রগতি প্রকাশন, মস্কো, ১৯৮৪, পৃষ্ঠা ৫-৭।

আরও পড়ুন